অলৌকিক ক্ষমতার লৌকিক কাহিনী – তৃতীয় পর্ব

অলৌকিক ক্ষমতার লৌকিক কাহিনী – তৃতীয় পর্ব

কতক্ষন কেটে গেছে বলতে পারবো না। সময় আমার কাছে এখন অসীম। সন্ধ্যা রাত না গভীর রাত তাও বলতে পারছি না। চিন্তা করার শক্তি লোপ পেয়ে যাচ্ছে। কেন জানি দেহে প্রচন্ড কাম বাসনা জেগে উঠেছে। আমি এক ভঙ্গিতে অনেকক্ষন উপুড় হয়ে পড়ে আছি। শুধু কপাল, দুই হাত আর হাঁটুর উপর কতক্ষন এভাবে থাকা যায়? এর উপর পাতলা কাপড়েও ঠান্ডা ঘরে শীত করছে না। শরীর থেকে শেষ কাপড়টুকু খুলে ফেলতে ইচ্ছে হচ্ছে। হঠাৎ হাতের বাক্সটায় জ্বীন বাবা কথা বলে উঠলেন,
-“মা, তুমি কি প্রার্থনার জন্য তৈরী?’
-“জ্বী বাআবাআ।” নিজের শ্লেষা জড়িত কণ্ঠ শুনে নিজেই নিজেকে চিনতে পারছি না। হঠাৎ ঘরে একটা অলৌকিক গন্ধ পেলাম। অনেকটা সুগন্ধি মেশানো, কিন্তু কাঠ পোড়া গন্ধ।
-“আমি দামাত-আল-ফিক্‌র নগর থেকে বাছাই করে একজন জ্বীনকে পাঠিয়েছি তোমার ইচ্ছা পূরণের জন্য। সৃষ্টিকর্তা মহান। তুমি একেবারেই ভয় পাবে না। তোমার সাথে একই ঘরে সে এখন আছে। আমাকে বলতো মা, এই মুহূর্তে তোমার কি ইচ্ছা হচ্ছে। মনের পর্দা সরিয়ে আমাকে বলবে।”
-“বাবা আমার খুব গরম লাগছে। আমার শরীরের নিচের অংশে অসহনীয়ভাবে কুটকুট করছে।” কি বললাম আমি এটা? কুটকুট করছে মানে? পরে চিন্তা করে দেখলাম। আমার মনের পর্দা সরিয়ে কথা না বললে যদি আমাদের ক্ষতি হয়। ঠিকই তো, আমারতো জরায়ু থেকে যোনিমুখ জ্বলে যাচ্ছে। স্তন গুলো মনে হচ্ছে ভারী পাথর হয়ে দেহ থেকে নিম্নগামী হয়ে আছে। মিথ্যা না বলে ভালোই করেছি।
-“তোমার জন্য জ্বীন হামজা এখন প্রার্থনা শুরু করবে। হামজা কথা বলতে পারে না। তুমি ওর কোনো স্পর্শে ভয় পাবে নাতো বেটি?”
-‘জ্বী-জ্বী-না।” কথা জড়িয়ে যাচ্ছে আমার। মাথা এলোমেলো লাগছে। আমার স্তন আর যোনিদেশ পরিষ্কার করতে ইচ্ছে হচ্ছে প্রচন্ড। এই ঠান্ডাতেও ঘেমে গিয়েছি। কি আর ভয় পাবো? প্রার্থনার নিয়ম মেনে এখন আমি সৃষ্টিকর্তার কাছের মানুষের ঘরে প্রার্থনা করছি। আমার তো কেউ ক্ষতি করতে পারবে না।

জ্বীন বাবার বাক্সে একবার হাত তালি বেজে উঠলো। হঠাৎ আমার শিরদাঁড়ায় অনুভব করছি পালকের মতো নরম কিছুর স্পর্শ। যেন পাখি তার একটা ডানা দিয়ে আমার ঘাড় থেকে শিরদাঁড়া বেয়ে নিতম্বের খাঁজ পর্যন্ত বুলিয়ে দিচ্ছে। আমি কিছুটা নড়ে উঠলাম। দেহের ভারসাম্য ঠিক রাখতে গিয়ে চেপে রাখা আলখাল্লার বুকের কাছের কাপড়টা আলাদা হয়ে স্তন দুটো পুরোপুরি ঝুলে গেল। একটু পর শিরদাঁড়ার সাথে সাথে আরো দুইটা পাখির ডানা আমার দুই স্তনের উপর তার ডানা বুলিয়ে দিতে লাগলো। জ্বীন হামজা’র মনে হয় অনেকগুলো হাত। কারণ ওনারাতো যেকোনো মূর্তি ধারণ করতে পারেন। আমার অসহ্য সুখ হচ্ছে। আবার পাপ হয়, তা-ই চিন্তাটা শুধু প্রার্থনায় ডুবিয়ে রাখলাম। একসাথে দেহের তিন জায়গায় পাখির পালকের স্পর্শ আমার দেহের কামনা বাড়িয়ে দিচ্ছে। স্তনবৃন্তদুটোয় দ্বিমুখী পালকের আক্রমণের কাছে আমি অনেকটা পরাজিত। প্রার্থনা বার বার ভুল হয়ে যাচ্ছে। আবার ঠিক করে পড়ছি।

এবার উঁচু হয়ে থাকা তলপেটের ঠিক মাঝখান থেকে পায়ুছিদ্র পর্যন্ত পালকের স্পর্শ পাচ্ছি। উফঃ! এত কিছু একসাথে আমি নিতে পারছি না। কোমরটা নিচু করে নিতম্বটা একটু নামিয়ে আনলাম। আমার স্তনবৃন্তে যেন কামের আগুন জ্বলছে। এত সুখ শুধু পালকের স্পর্শেই? হামজা কি আমার দেহে কোনো প্রার্থনা করবে? এই কথা ভেবে আমার যোনিমুখে কিছুটা নির্যাস বেরিয়ে এলো। যোনিকেশ ছেঁটে ছোট করা। তাতে বারবার নরম পালকগুলো আটকে যাচ্ছে। সিক্ত যোনিমুখের বাইরে পালকের নরম ছোঁয়া লাগতেই আমার মাথায় যেন হাজার হাজার বিদ্যুৎ বাতি জ্বলে উঠলো। আমার যোনিরসে পালক গুলো ভিজে গেছে। ভেজা পালক যোনিমুখের সাথে ঘষা লাগছে আর আমার দেহের প্রতিটি কোষ যেন ফোয়ারার মতো দেহ থেকে ছিটকে বেরোতে চাইছে।

একটা লাঠির মতো শক্ত কিছু এবার আমার দেহ থেকে পাতলা কাপড়টা সরিয়ে মাথার কাছে ফেলে দিল। আমার শরীরে শুধু মাথার কাছে কাপড়টা জড়সড় হয়ে এলিয়ে আছে। প্রায় নগ্ন হয়ে এখন আমার কাম আমাকে আরো তাড়িত করছে। আমি কে, কোথায় সব ভুলে গেছি। শুধু ইচ্ছে হচ্ছে পৃথিবীর সব শক্ত কিছু যোনিতে ভরে রাখলে একটু প্রার্থনা টা করতে পারতাম। আমি আস্তে আস্তে একটু জোরে গোঙাতে গোঙাতে প্রার্থনা করতে লাগলাম। আবার হাত তালি। এবার দুইবার।

আমি তখনও উপুড় হয়ে নিতম্ব, যোনি উদলা করে কামের তাড়নায় পুড়ে মরছি। হঠাৎ আমার যোনিমুখে একটা নরম কিছুর স্পর্শ পেলাম। একদম জিভের মত। যোনিকেশ সহ যোনিমুখটা নিচ থেকে উপরে পায়ুছিদ্র পর্যন্ত স্পর্শ বুলিয়ে যাচ্ছে। দুইটা ভাল্লুকের পশমের মতো লোমশ হাত আমার মাথাটা উঁচু করে দিল। আমি দুই কনুইর উপর ভর দিয়ে মাথা তুলতে চেষ্টা করলাম। মাথাটা এতই ভারী হয়ে আছে যে মাথাটা ছেড়ে দিয়েছি। তুলে রাখতে পারছি না। কামে আমার দেহ জ্বলে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:-  নষ্ট কাহিনী নিহা

এবার দুই স্তনবৃন্তে দুইটা মানুষের মতো মুখ একেবারে শিশুদের মতো করে আমার স্তন চুষতে লাগলো। একটা জ্বিনের কি তাহলে অনেকগুলা মুখ? দেহটা তাহলে কেমন? কল্পনায় কিছুই আনতে পারছি না। তিন স্পর্শকাতর অঙ্গে একই সাথে এমন সুখ আমি কখনোই পাইনি। এবার আর প্রার্থনার কথা মনে থাকলো না। আমি “আঃ আঃ” করে ধীরে ধীরে গোঙাচ্ছি। এইভাবে এখন আর প্রার্থনা করা সম্ভব নয়। ভুলে গেছি। এখন শুধু একটাই প্রার্থনা, “আমাকে একটা লিঙ্গ দাও, হে প্রভু আমাকে একটা লিঙ্গের ব্যবস্থা করে দাও।” আমি আর নিতে পারছি না। উফঃ। এত কামনা আমার শরীরে? যেই ভরাট স্তন আর নিতম্ব দেখে সব ছেলেগুলো মাতাল হয়ে যেত সেইখানে এখন এক অশরীরী জ্বিনের তিনমুখী চোষনে আমি পাগলপ্রায়। “আর পারছি না প্রভু। আমাকে একটা ব্যবস্থা করে দিন।”

দুই স্তনবৃন্ত থেকে এখন পুরো স্তনে জিভের মতো এবং লালায় ভেজা কিছুর ছোঁয়া পাচ্ছি। এবার পুরো শরীরে পাখির পালকগুলো ডানা বুলিয়ে যেতে লাগলো। আমি আর উত্তেজনায় থাকতে না পেরে দুমড়ে মুচড়ে মেঝেতে উপুড় হয়ে গোল হয়ে শুয়ে গেলাম। আমার দুই হাত মাথার উপর উঠিয়ে দিয়ে দুই পাশ থেকে লোমশ চারটি হাতের মতো কিছু আমার দুই স্তন আজলায় ভরে নিয়ে স্তনবৃন্তগুলো চুষে চুষে খাচ্ছে। আর আমার যোনিমুখের পাপড়িগুলো যেন আইসক্রিম। এমন করে মুখে পুরে চুষে খাচ্ছে হামজার তৃতীয় মুখটি। আমি ভুলে গেলাম আমি পবিত্র মাজারে। আমি শীৎকার করে উঠলাম, “আঃ আঃ মাগো। উফঃ এত কাম তুমি আমার দেহে দিয়েছ! তোমার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ হে সৃষ্টিকর্তা!” বলতে বলতেই আমার যোনির নির্যাস চড়চড় বেরিয়ে গিয়ে করে প্রার্থনার গালিচা কিছুটা ভিজিয়ে দিল।

এবার তিনবার হাততালির শব্দ হলো। সাথে সাথে আমার স্তনের উপর সুখের ছোঁয়ার আক্রমণ আরো তীব্র হলো। স্তনবৃন্তগুলো ছিড়ে বেরিয়ে গিয়ে হামজার দুই মুখে যেন ঢুকে যেতে চাচ্ছে। কিছুক্ষন পর যোনিমুখ থেকে হামজার তৃতীয় মুখটি সরে গেল। সেখানে কিছু নরম কিন্তু শক্ত মাংসের মতো কিছু একটা এসে ঠেকলো। এটা হয়তো হামজার কোনো একটা আঙ্গুল। আমি সাহস করে আমার হাত বাড়াতে পারছি না। যদি আমার কোনো ক্ষতি হয়! খুব ইচ্ছে করছিল আমার যোনিমুখে হামজার হাতের বড় আঙ্গুলটা একটু ধরে দেখতে। কিন্তু উপায় নাই। হামজার আঙ্গুলটা আমার পবিত্র কামরসে সিক্ত যোনিমুখে এখনো ঘষটে ঘষটে ঘোরাফিরা করছে। আমি অসহ্য সুখে “আঃ আঃ আঃ উমম” করে জোরে গোঙাতে লাগলাম। তখন একটা লম্বামতো মসৃন ধাতব কিছু আমার মুখে ঢুকিয়ে দেয়া হলো। জিনিসটা কোনো পুরুষের লিঙ্গ নয়, কিন্তু মানব পুরুষের লিঙ্গের মতোই মাথাটা ফোলা আর লম্বা। আমার মুখ ভর্তি করে গলা পর্যন্ত চলে গেল বস্তুটা। এখন আর শব্দ বের হচ্ছে না আমার মুখ দিয়ে। শুধু গোঁ গোঁ আওয়াজ বের হচ্ছে কামের তাড়নায়।

তীব্র একটা ধাক্কায় হামজার মানুষের লিঙ্গের মতো মোটা আঙ্গুলটা আমার যোনিমুখ ভেদ করে ভেতরে গেঁথে গেল। আমার যোনি একেবারেই ব্যবহার হয়নি। এর থেকে আমার পায়ুপথ অনেক বেশি প্রশস্ত। যেটা ওয়াহিদ এই পাঁচ বছরে ধীরে ধীরে করে দিয়েছে। কুমারী যোনিতে হঠাৎ আক্রমণের কারণে আমি কাটা মুরগির মতো ছটফট করে উঠলাম। হামজা একসাথে তাঁর অনেক গুলো হাত দিয়ে আমাকে চেপে ধরে শান্ত করার চেষ্টা করছে। আমি কিভাবে হামজাকে বুঝাবো আমার কষ্টটা আদতে সুখের শীৎকার! সুখে আমি প্রার্থনা আওড়ানোর চেষ্টা করছি। কিছুই মনে আসছে না। এতগুলো স্পর্শকাতর অঙ্গে একইসাথে এইভাবে কোনো মানুষের দ্বারা রমন করা সম্ভব নয়। দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় হামজা তাঁর একটা বড় আঙ্গুল আমার যোনিতে পুরোপুরি স্থাপন করতে পারলো। আমার ক্ষুদ্র, প্রায় কুমারী যোনিপথ যেন চিরে মোটা আঙ্গুলটা ঢুকে যাচ্ছে। কিছুক্ষন আমার যোনিতে হামজা তাঁর আঙ্গুল চালনা করতেই আমার দেহে কামের বান ডেকে গেল। সিক্ত যোনিমুখে আর উরুতে খসখসে কিছু একটা আঘাত করছে। মানুষের মতো চামড়া নয়। অনেকটা চটের মতো খসখসে হাতের চামড়া হামজার।

হামজার মোটা আঙ্গুলের তীব্র আঘাতে আমার মানব শরীর ছিন্নভিন্ন হয়ে যাচ্ছে। আমি একটানা গোঁ গোঁ করে গুঙিয়ে যাচ্ছি। এখনো হামজার দুই মুখ আমার স্তনবৃন্ত বিরামহীন চুষে চলেছে। হামজার আঙ্গুলের আরো কয়েকটা তীব্র গতির আঘাতে আমি আবার “আআম আআম আঃ আঃ মাগো!” করে পবিত্র যোনিরস ছেড়ে দিলাম। তখনও হামজা আঙ্গুল দিয়ে আমার যোনিতে প্রার্থনা করে চলেছে। এবার হামজার আঙ্গুলটা আমার যোনি দেয়াল থেকে বের হয়ে গেল। কিন্তু, একটু পরেই হামজা আরো মোটা একটা আঙ্গুল আমার যোনি দেয়ালে গেঁথে দিয়ে প্রার্থনা শুরু করলো। সুখের ঠেলায় আমার শুধু হামজার নাম মনে আসছে। জগতের আর সব আমি ভুলে গেছি। “ইশশশ! উফঃ মাগো, কি সুখ নিবিড় প্রার্থনায়।” হামজা এবার শুধু একটা মুখ দিয়ে আমার স্তন কামড়ে চেটে চুষে দিচ্ছে।

আরও পড়ুন:-  বাড়ী কোলকাতা

সময় আমার কাছে এখন অসীম। আমি আমার যোনির ক্ষুধা সব হামজাকে দিয়ে মিটিয়ে নিয়ে আজকে ঘরে যেতে চাই। আরো হাজারো বার পবিত্র যোনিরস নিংড়ে হামজার আঙ্গুল গুলো সিক্ত করতে চাই। এই মুহূর্তে আমার মনে শুধু হামজা আর তাঁর অদ্ভুত দর্শন তিনমুখী দেহের স্পর্শ। উফঃ কি সুখ! মাগো! হামজার মোটা আঙ্গুলটা এখনো চালনা করছে আমার যোনিতে। মানুষের হলে হয়তো আমি বুড়ো আঙ্গুল বলতে পারতাম। হামজার কয়টা হাতে কয়টা আঙ্গুল কে জানে! হামজার মোটা আঙুলের তীব্র প্রার্থনায় পবিত্র যোনিরস আমার উরু বেয়ে গড়িয়ে পড়ছে। এত রস আমার যোনিতে কোথা থেকে যে এলো! আমার মুখ থেকে ধাতব লিঙ্গটি পুরোপুরি সরিয়ে নেয়া হলো। এবার জ্বীন কথা বলে উঠলো,
-“মা জননী, তোমার প্রার্থনা ভালো লাগছে?”
-“ভালো লাগছে বাবা! উফঃ প্রচন্ড ভালো লাগছে। আমি আমার স্বামীর বীর্যে গর্ভধারণ করতে চাই। হামজা আমাকে তীব্র সুখে পাগল করে দিচ্ছে বাবা!”
-“ঠিক আছে, এবার তোমার মূল প্রার্থনা শুরু হবে। তোমার দেহে মানব ভ্রুণ স্থাপিত হবে। তুমি একমনে প্রার্থনা করতে থাকো।”
-“প্রার্থনা মনে নেই বাবা, শুধু মাথায় আসছে বাড়া! ধন! শিশ্ন! লিঙ্গ! জোরে! আরো জোরে! আঃ আঃ উমম আঃ!”
-“তোমার শেষ প্রার্থনা এখন শুরু হবে। ধৈর্য্য ধরতে হবে। তোমার প্রার্থনা সৃষ্টিকর্তা কবুল করতে চলেছেন।”

এবার হামজা আমার সব কিছু ছেড়ে দিল। আমি বেশ্যাদের মতো বলে উঠলাম, “আমাকে দয়া করুন হামজা, আমার যোনিমুখে আপনার আঙ্গুল চালানো থামাবেন না দয়া করে। আমাকের দয়া করুন। উমম! উফঃ!” আমাকে নিয়ে প্রার্থনার গালিচাটা শূন্যে উঠে গেল। আমাকে উঁচু শক্ত কোথাও উঠিয়ে রাখলো। টেবিলের উপর হয়তো। আমি জানতে চাই না! আমি হামজার অশরীরী আঙ্গুল আমার যোনিতে চাই শুধু আর কিছু চাই না। এবার টেবিলের উপর আমার দুই পা শূন্যে তুলে ধরলো দুটো লোমশ হাত। দেহের কাপড় মেঝেতে পড়ে গিয়ে আমি পুরোপুরি নগ্ন হয়ে টেবিলে চিৎ হয়ে শুয়ে একমনে প্রার্থনা করে চলেছি। “ধন! ধন! বাড়া! বাড়া!” আমার মনের প্রার্থনা হামজা শুনতে পেয়েছে। এবার হামজার ক্রমাগত আঙ্গুল চালনায় ধ্বংস হয়ে যাওয়া কুমারী যোনিতে প্রকান্ড মোটা একটা আঙ্গুল ঢুকে যাচ্ছে। আগেরটা যদি বুড়ো আঙ্গুল হয়, তাহলে এইটা কি? এত মোটা আঙ্গুল হয়? মনে আসলো, আচ্ছা হামজার লিঙ্গ না-তো? পরক্ষনেই নিজের ভ্রান্ত ধারণার কারণে নিজেই লজ্জা পেয়ে হামজার সবচেয়ে মোটা আঙ্গুলটা নিজেই কোমর চেপে চেপে রসে সিক্ত যোনিতে ঢুকানোর চেষ্টা করছি। ছোট্ট যোনিমুখে অনেক কসরত করতে হচ্ছে। অসীম সুখও হচ্ছে।

এবার হামজা একটা আঙ্গুল আমার মুখে দিয়ে দিল। এত মোটা আঙ্গুল, একেবারে মানুষের লিঙ্গের মতো। হামজার শক্ত আঙ্গুল মুখে নিয়ে প্রার্থনা করে যাচ্ছি, আমার স্বামীর আর আমার পাপ ধুয়ে আমার গর্ভে সন্তান দাও হে সৃষ্টিকর্তা। তখনও হামজার একটা মুখ আমার স্তন চেটে দিয়ে সাথে বগলের তলাটা চেটে দিচ্ছে। মাঝে মাঝে আমার শরীরের ভিভিন্ন জায়গায় জিভ দিয়ে চেটে দিচ্ছে। দুইটা লোমশ হাত আমার স্তন দুটো আঁকড়ে ধরে রেখেছে। হামজার মোটা আঙ্গুলটা এবার এক ধাক্কায় আমার যোনিমুখ ভেদ করে জরায়ুতে গিয়ে ধাক্কা মারতে শুরু করলো। অসুরের মতো হামজা এবার আমার যোনিতে আঙ্গুল চালাচ্ছে। হামজার এই রকম একটা আঙ্গুলের মতো শুধু আমার স্বামীর লিঙ্গটা থাকলে আজ আমি কত সুখী হতে পারতাম, সেই চিন্তা করতে করতে হামজার আরেকটা শিশ্নের মতো আঙ্গুল মুখে নিয়ে চুষতে লাগলাম। যেন যোনিমুখের কামড়ে হামজার মোটা আঙ্গুলের রস নিংড়ে মানব শরীরে নিয়ে নিতে পারি। অশরীরী একটা আঙ্গুল আমাকে বাতাসে ভর করে যেন আমার সেই স্বপ্নের কটেজে নিয়ে যাচ্ছে। হামজা যোনিতে আঙ্গুল চালনার গতি বাড়িয়ে দিল। একটু পর “আঃ মাগো! আঃ আঃ!” বলে শীৎকার দিয়ে উঠলাম। কারণ, মনে হলো আমার যোনির পবিত্র রস আবার ছিটকে বের হয়ে গিয়েছে। কিন্তু হামজার আঙ্গুল তখনও আমার যোনির গভীরে গেঁথে থেকে শুধু ফুঁসছে!

হামজা আমার মুখ থেকে ওর আঙ্গুলটা বের করে নিয়ে আরেকটা আঙ্গুল যোনিতে গেঁথে দিয়ে প্রার্থনার ভঙ্গিতে চালনা করতে লাগলো। কিন্তু ততক্ষনে আবার আরেকটা আঙ্গুল আমার মুখে দিয়ে দিল। আমার নোনতা পবিত্র যোনিরসের স্বাদ মুখে লাগলো। আমি চেটে পুটে হামজার আঙ্গুল থেকে আমার যোনিরসের অধিকার ফিরিয়ে নিতে চাইছি। পুরো যোনিরস চেটে পরিষ্কার করতে করতেই হামজার আরেকটা আঙ্গুল আবারো আমার যোনির গভীরে গেঁথে গিয়ে স্থির হয়ে গেল। হামজার আঙুলের মাথা থেকে কোনো পবিত্র রস ছলকে ছলকে আমার যোনিগহ্বরে গিয়ে পড়লো, নাকি আমার নিজের পবিত্র যোনিরস বের হলো, বুঝতে পারলাম না। এতবার আজ যোনিরস বের হয়েছে। আমার ২৫ বছরের জীবনে সব মিলিয়ে এত রস বের হয় নি।

আরও পড়ুন:-  Bangla digital choti কক্সবাজারে শীতের রাতে বন্ধুর সাথে বউ বদল

হামজা আঙ্গুলটা আমার যোনি থেকে বের করে নিল। এবার হামজা তৃতীয় একটা আঙ্গুল আমার যোনিতে স্থাপন করলো। কিন্তু আগের মোটা আঙ্গুলগুলোর তুলনায় এই আঙ্গুলটা একটু কম মোটা। কিন্তু আঙ্গুল চালনার গতি অনেক বেশি। তীব্র গতির আঙ্গুল চালনা অবশ্য বেশিক্ষন স্থায়ী হলোনা। কারণ আমার উন্নত ভারী স্তনগুলো তীব্র আঙ্গুল চালনার কারণে তীব্রগতিতে ছটফট করছিল। হামজার দুটো মুখও সেদুটোকে সামলাতে পারছিল না। বার বার মুখ থেকে চকাস চকাস করে আমার স্তনবৃন্তদুটো ছুটে বেরিয়ে যাচ্ছিল। আমার নিজের স্তন নিজেই খামচে ধরে রগড়াতে ইচ্ছে করছিল। কিন্তু আমার হাত অতি সযত্নে সংযত করে দেহের দুই পাশে স্থির রেখে যোনিমুখে হামজার আঙ্গুলের তীব্র গতি উপভোগ করে যাচ্ছিলাম। এবারে আমার যোনিতে এতই সুখ হতে লাগলো যে মনে মনে হামজার লিঙ্গ সারা জীবনের জন্য কামনা করছিলাম। পরক্ষনেই সৃষ্টিকর্তার কাছে ভুল চিন্তার জন্য মাফ চেয়ে নিয়ে হামজার দুটো আঙ্গুলের মাথা একসাথে মুখে নিয়ে চুষে দিতে লাগলাম। স্বর্গীয় সুখানুভূতির মধ্যেই হামজার তৃতীয় আঙ্গুল চালনা তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে এক সময় অজগর সাপের মতো ফোঁস ফোঁস করে আমারে যোনির গভীরে গেঁথে গিয়ে স্থির হয়ে গেল।

এবার ঘরে হামজা হাত তালি দিল দুইবার। আমি তখনও নগ্নবস্থায় টেবিলে শুয়ে চিৎ হয়ে শুয়ে আছি। হামজার প্রার্থনা শেষ। জ্বীন কথা বলে উঠলো, “মা জননী, তোমার প্রার্থনা সৃষ্টিকর্তা দরবারে কবুল হয়েছে। তোমাকে এবার আবশ্যিক গোসল করে প্রার্থনায় বসতে হবে।” আমার হাতে সেই ধাতব বস্তুটা ধরিয়ে দেয়া হলো। আমি ধরে আছি, তখন ধাতব বস্তুটা এক দিকে সরে যেতে থাকলো। আমি উঠে ধাতব বস্তুটার সাথে সাথে কোনোমতে টলতে টলতে যেতে থাকলাম। হামজা আমাকে নিয়ে যাচ্ছে, নাকি হামজার কোনো একটা হাত? আমি কয়েক পা এগুতেই, হামাজার দুই লোমশ হাত আমার বিশাল ভারী নিতম্বটায় একসাথে চাপড় দিয়ে নিতম্বের মাংসটা ফাঁকা করে ফাটলটায় একটা নরম কিছু ছোয়া পেলাম। অনেকটা চুমুর মতো করে ছোঁয়ালো। মুখটা মানুষের মতোই মনে হলো। কারণ নাকের মতো কিছু একটা ঠেকলো নিতম্বের মাংসে। কিন্তু পরক্ষনেই আমার আউলা মাথার চিন্তায় হাসি পেল, হামজার মানুষের মতো মুখ হতে যাবে কেন! আমি বাথরুমে গিয়ে আবশ্যিক গোসলটা সেরে নিলাম। এবার আর পবিত্র যোনিরস নিংড়ে বের করার চেষ্টা করলাম না। কারণ, কিছু অবশিষ্ট নেই সেখানে।

ভোরের প্রার্থনা শেষ করে যখন নিচে নেমেছি তখনও মাজারে এখানে সেখানে মানুষজন ঘোরাফেরা করছে। অশরীরী স্পর্শের প্রার্থনা শেষ করে বাসায় ফিরতে ফিরতে ভোর হয়ে গেল। বাসায় এসে খুলে দেখলাম ব্যাগের ভেতর ধাতব বস্তুটা। চকচকে স্বর্ণের একটা ধাতব মানব পুরুষের লিঙ্গ। মাথাটায় মোটা একটা মুন্ডি। স্বর্ণের উপরেই শিরা উপশিরা গুলো ফুলে আছে। বস্তুটা হাতে নিতেই লজ্জা লজ্জা লাগলো। কিন্তু জ্বিনের উপহার। সযত্নে কাপড় মুড়ে রেখে দিলাম দেরাজে। সেদিন বিছানায় শুয়ে এক ঘুমে দিন শেষ। রাতে উঠে ওয়াহিদকে ফোন দিলাম। নিয়মরক্ষার কথা বার্তা হলো কিছুক্ষন। রাতে খেয়ে আবার শুয়ে পড়লাম। পা ঠিক মতো টেনে হাঁটতে পারছিলাম না সারাদিন। কোমরের নিচে প্রচন্ড ব্যাথা। মনে মনে প্রার্থনা করতে করতে কখন ঘুমিয়েছি টের পাই নি। ভোররাতে ঘুম ভাঙলো ফোনের টি টি আওয়াজে। জ্বীন বাবার কন্ঠ, “মা জননী। তোমার উপর সৃষ্টিকর্তা খুশি হয়েছেন। তোমাকে এখন আরো নারীদের উপকার করতে হবে।”

।। চলবে… ।।

Leave a Reply

Scroll to Top