জীবনের অপর পৃষ্ঠা (পর্ব-২৪)

লেখক – কামদেব

[চব্বিশ] —————————

সকাল সকাল স্নান খাওয়া দাওয়া করে রত্নাকর বেরোবার জন্য প্রস্তুত।বেরোবার আগে মাকে প্রণাম করবে কিন্তু কোথায় মনোরমা?এঘর ওঘর করে মায়ের ঘরে পাওয়া গেল।আলমারি খুলে কিসব ঘাটাঘাটি করছেন।
–তুমি এখানে? সারা বাড়ী খুজে বেড়াচ্ছি আমি।
ছেলেকে দেখে বললেন,এদিকে আয়।
রত্নাকর কাছে গিয়ে নীচু হয়ে মায়ের পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করল।উঠে দাঁড়িয়ে দেখল মায়ের হাতে একজোড়া সোনার বালা,মুখে দুষ্টু হাসি।
— এই বালা জোড়া তোর বউয়ের জন্য রেখেছি। মনোরমা বললেন।
–গাছে কাঠাল গোফে তেল।লাজুক হেসে বলল রত্নাকর।আমি আসছি?
রত্নাকর রাস্তায় নেমে বড়রাস্তার দিকে হাটতে শুরু করে।আজ রেজাল্ট বেরোবার কথা,মার চিন্তা ছেলের বউ।সব মায়েদের মনে ছেলের বউকে নিয়ে সংসার করার স্বপ্ন থাকে।বড় ছেলের বেলা হয়নি এখন ছোট ছেলেকে নিয়ে পড়েছে।অবাক লাগে পরীক্ষার আগে ‘পড়-পড়’ করে অতিষ্ঠ করে তুলতো অথচ রেজাল্ট বেরোবে শুনেও এখন কেমন নির্বিকার গা-ছাড়া ভাব? নজরে পড়ল রোজিকে নিয়ে দেবযানী আণ্টি হন হন করে চলেছেন।রত্নাকর কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করে,ভাল আছেন?
দেবযানী একবার মেয়ের দিকে তাকালেন।রোজি এমনভাবে অন্যদিকে তাকিয়ে যেন রতিকে দেখতেই পায়নি।দেবযানী বললেন,তোর মা ভাল আছে?
–ঐ একরকম।
–ওকি কথা?যখন থাকবে না তখন বুঝবি মা কি?
রত্নাকরের চোখ ভিজে যায়।দেবযানী বললেন,দেখ মেয়ের রেজাল্ট বেরোবে আর এই শরীর নিয়ে আমাকে মেয়ের সঙ্গে যেতে হচ্ছে।
–বললাম তোমাকে যেতে হবেনা তুমিই তো জোর করে এলে।রোজি অনুযোগ করে।
–থামো।আমি না গেলে তোমার খুব সুবিধে?
–তাহলে আবার এসব বলছো কেন?রোজি নাকি সুরে বলল।
–দেখলি রতি দেখলি?কেমন মুখে মুখে কথা?
–আচ্ছা বাবা আমি আর একটি কথা যদি বলি।রোজি বলল।
–আণ্টি তোমার ভালর জন্যই বলছেন।রত্নাকর বলল।
রোজি কট্মট করে তাকায় কিছু বলেনা।দেবযানী বললেন,মা তো ওর শত্রূ,কত সব হিতৈষী জুটেছে এখন।
রোজি আড়চোখে রতিকে দেখে চোখাচুখি হতে জিভ ভ্যাংচায়।রাস্তার মোড়ে এসে বাক নিলেন দেবযানী।মেয়েদের কলেজ ঐদিকে।
কলেজে ভীড় দেখে বুঝতে পারে খবরটা মিথ্যে নয়।ঐতো দেওয়ালে লটকে দিয়েছে।অফিস ঘরে লম্বা লাইন।রত্নাকর ভীড় ঠেলে এগোতে গেলে সুদীপ বলল,আছে নাম আছে।
খুজে খুজে নামটা দেখে মন খারাপ হয়ে যায়,সেকেণ্ড ক্লাস।ভীড় ছেড়ে বাইরে আসতে সুদীপ বলল,একটা খারাপ খবর আছে।
খারাপ খবর?তনিমার কিছু হল নাকি?চোখ তুলে তাকাতে সুদীপ বলল,বঙ্কার এক সাবজেক্ট ব্যাক।
–কোথায় বঙ্কা?
–ঐ ওদিকে বসে আছে।
দুজনে ভীড় সরিয়ে বঙ্কিমের কাছে গিয়ে বলল,তুই এখানে?চল ক্যাণ্টিনে গিয়ে বসি।
তিনজনে ক্যাণ্টিনে গিয়ে চা নিয়ে বসল।
–তোরা ভাবছিস আমার মন খুব খারাপ?বঙ্কিম হেসে জিজ্ঞেস করে।
রত্নাকর খুশি হয় বঙ্কার এই মনোভাবে।বঙ্কিম বলল,বাড়ীতে মামাটা এক্টূ খিচখিচ করবে।একটা সাবজেক্ট আবার দেবো কি আছে?
বাবা মারা যাবার পর বঙ্কারা মামার আশ্রয়ে থাকে। চা খাওয়া হলে ওরা লাইনে দাড়ালো মার্কশীট নেবার জন্য।লাইন ক্রমশ বড় হচ্ছে।মার্কশীট নিয়ে রত্নাকর জিজ্ঞেস করে,বাড়ী যাবি তো?
সুদীপ হেসে বলল,একজন আসবে তুই যা।সন্ধ্যেবেলা পঞ্চাদার দোকানে দেখা হবে।
–বঙ্কা?
–আমিও পরে যাবো।বঙ্কিম বলল।
রত্নাকরের মন খারাপ।সামান্য নম্বরের জন্য ফার্স্ট ক্লাস ফসকে গেছে।পার্ট-টুতে যদি মেক আপ করা যায়।মায়ের কথা মনে পড়ল।ছেলের বিয়ে দেবার ইচ্ছে।সবাই প্রায় প্রেম করেছে।তার যদি কোনো প্রেমিকা থাকতো তাহলে মায়ের সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিত।একটা কথা মনে হতে হাসি পেয়ে গেল।জনাকে নিয়ে যদি মায়ের সঙ্গে আলাপ করিয়ে দেয় তাহলে মায়ের অবস্থা কেমন হবে ভেবে মজা পায়।জনাকে দেখে মা হয়তো অজ্ঞান হয়ে যেত।কিম্বা ছেলের বউ নিয়ে ঘর করার ভয়ে দেহত্যাগ করত।
–একা একা হাসছো কি ব্যাপার?
চমকে তাকিয়ে দেখল মিলি কখন এসে দাঁড়িয়ে আছে খেয়াল করেনি।টেনে চুল বাধা, চোখে মোটা করে কাজল দিয়েছে।ছোট ঝুলের জামা লেগিংস পরেছে।স্যাণ্ডী কখনো হাফ প্যাণ্ট পরে তার সামনে এসেছে কিন্তু এমন অদ্ভুত দেখতে লাগেনি। বোধ হয় সিনেমা-টিনামা যাচ্ছে।কৌতুক করে বলল,দোকা পাবো কোথায়?
–আহা,সামনে তাকিয়ে দেখেছো কখনো?তুমি তো আকাশের দিকে তাকিয়ে চলো।
–তোমার উলটো।
–তার মানে?
–আমার বাস্তবের মাটিতে পা আর উন্নত দৃষ্টি।তুমি উর্ধপদ হেট্মুণ্ড।
–তার মানে তুমি বলছো আমার নজর নীচু?অভিমানী গলায় বলল মিলি।
–তুমি ফ্যাণ্টাসির জগতে বাস করছো।যেদিন বাস্তবের কর্কশ কাকড়ে পা পড়বে বুঝতে পারবে।বাদ দাও বাজে কথা, আজ কলেজ যাওনি?
–আজ পার্ট ওয়ানের রেজাল্ট বেরিয়েছে,ক্লাস হবেনা।ও তুমি পরীক্ষা দিয়েছিলে না?
–পাস করেছি।
–শুভর খবর কি জানো?
–ওর অন্য কলেজ দেখা হয়নি।
–রতি তোমাকে একটা কথা বলবো,রাগ করবে না?
–তুমি কি বলবে আমি জানি। তবু বলো,আমি কারো উপর রাগ করিনা।
–বাবা ডাক্তার ভাবে কিই না কি?
রত্নাকর হেসে ফেলল।সোমলতার কথা বলতে চাইছে,ওর প্রতি লক্ষ্য করেছে অনেকের রাগ।ওকে কখনো কাউকে নিয়ে বলতে শোনেনি। মিলি বলল,হাসির কি হল?
–তুমি কি সিনামা যাচ্ছো?দেরী হয়ে যাচ্ছে না?
–তুমি যাবে?আড়চোখে তাকায় মিলি।
–আমার পকেট খালি।
–আমি তোমাকে একটা সিনেমা দেখাতে পারবো না?চলো একা একা ভাল লাগে না।
–বাড়ীতে মা অপেক্ষা করছে।কিছু মনে কোর না, আসি?
রত্নাকর চলে যাওয়ার দিকে তাকিয়ে মিলি ভাবে,মাতৃভক্ত হনুমান।একভাই তো মাকে ফেলে বউ নিয়ে কেটে পড়েছে।দেখবো কতদিন থাকে মাতৃভক্তি।বেশি পাত্তা দেওয়াই ঠিক হয়নি।সোমলতা লাথ মেরেছে ঠিক করেছে।
মিলি গত বছর পার্ট ওয়ান পাস করেছে।ওর বাবা বেসরকারী একটা ব্যাঙ্কে আছেন।শুভর সঙ্গে কি নিয়ে গোলমাল জানে না।মনে হল ভালই হয়েছে।শুভদের বাড়ীর অবস্থা বেশ ভালই।ওর দাদা ব্যাঙ্কে কাজ করে।শুভ ভালভাবে পাস করে একটা চাকরি জুটিয়ে নিতে পারলে মনে হয়না দেবযানী আণ্টির আপত্তি হবে না।ছন্দা আণ্টি বেশি বাইরে বেরোয় না,পারমিতা এদিক দিয়ে স্বাধীন।ওর ক্ষেপচুরিয়াস কাকাটাই পিছনে লেগে আছে। এই মুহূর্তে কেন কে জানে স্যাণ্ডির কথা মনে পড়ছে।আর হয়তো দেখা হবেনা।পাস করেছে শুনলে খুব খুসি হত।বুকের উপর মাথা চেপে ধরাটা মনে পড়ছে।মনে কোন মালিন্য ছিলনা,তাহলে মাসীর সামনে কুকড়ে যেতো। অত্যন্ত সহজভাবে বলেছিল,না তুমি আসবে।মি.গুপ্ত নিষেধ করেছেন স্যাণ্ডি কি জানে?না জানলেও রোববারের পর নিশ্চয়ই জানতে পারবে মাস্টারমশায় আর যাবে না।
দরজা হাট করে খোলা,ঘুমিয়ে পড়েছেন মনোরমা।সারাদিনের পরিশ্রমে ক্লান্ত,রত্নাকর ডাকে না।চুপচাপ একপাশে শুয়ে পড়ল।একটু পরেই অনুভব করে মাথার চুলে আঙুলের সঞ্চরণ।রত্নাকর জিজ্ঞেস করল,তুমি ঘুমাওনি?
মনোরমা ফিক করে হেসে বললেন,দুপুরে আমি ঘুমাই নাকি?
–তাহলে শুয়ে আছো?শরীর খারাপ?
মনোরমা কিছু বলেন না।রত্নাকর বলল,তাহলে মন খারাপ?তোমার মন ভাল করে দিচ্ছি।
রত্নাকর মায়ের হাতে মার্কশিট এগিয়ে দিল।মনোরমা এক ঝলক চোখ বুলিয়ে বললেন, দিবু এসেছিল।
–দাদা আবার এসেছিল?
ঘড়ির দিকে তাকিয়ে মনোরমা বললেন,অনেক বেলা হয়ে গেছে।তুই বোস আমি চা করে আনি।
দাদা এসে কি বলেছে মা বলল না।রত্নাকর পীড়াপিড়ী করেনা,সময় হলে মা নিজেই বলবে।
মনোরমা দু-কাপ চা আর একবাটি মুড়ী নিয়ে ঢুকতে ঢুকতে বললেন,দিবুটার মধ্যে এই মানুষটা ছিল ভাবতেও পারিনি।
–ঐসব ভেবে মন খারাপ কোরোনা।
মনোরমা ছেলেকে কয়েক পলক দেখে বললেন,তুই হয়েছিস তোর বাবুর মত।বোকা-বোকা ভাব সব বুঝতে পারত কিন্তু মুখে কিছু বলত না।
–মা বাবুর কথা বলো।রত্নাকর আবদার করে।
–ভাসুর ঠাকুর গুরুজন তার নিন্দা করবনা।শুধু তোর বাবুকে বোঝার জন্য একটা ঘটনার কথা বলছি।গ্রাম থেকে একদিন এসে বলল,অমুক তুই তো গ্রামে যাবিনা।তোর বাবু বলল,চাকরি ছেড়ে কি করে যাবো?ভাসুর-ঠাকুর বললেন,তা ঠিক তাছাড়া গ্রামে আছেই বা কি?তুই এই কাগজটায় সই করে দে।জমিজমার বেদখল ঠেকাতে মাঝে মধ্যে আদালতে যেতে হয়।তোর পক্ষে কাজ কর্ম ছেড়ে ত বারবার যাওয়া সম্ভব নয়।তোর বাবু সই করে দিল।আমি রাগারাগি করছিলাম,যা বলল তুমি বিশ্বাস করে নিলে?তোর বাবুর সেদিনের কথাটা কোনোদিন ভুলব না।মা আচল দিয়ে চোখ মুছে বলল,তোর বাবু বলেছিল মনো যে ঠকে অপরাধ তার নয়,অপরাধ যে ঠকায়।দাদা ঐসব বানিয়ে বানিয়ে না বললেও আমি সই করে দিতাম।
রত্নাকর অবাক হয়ে মাকে দেখে।এসব কথা কোন বইতে লেখা আছে?কিন্তু মার মনে আজও গাথা হয়ে আছে।
সন্ধ্যে হয়ে এসেছে।রত্নাকর বেরিয়ে পড়ে।পঞ্চাদার দোকানে সবার আসার কথা।বিজেন্দ্র নারায়ন কোর্ট থেকে ফিরে একটু বিশ্রাম নিয়ে চেম্বারে যাবার জন্য তৈরীহচ্ছে।বেলাবৌদি তাকিয়ে স্বামীকে লক্ষ্য করছেন।
–কি কিছু বলবে?
–তুমি তো এমন ছিলেনা।
বিজুদা বিরক্ত হয়ে বললেন,কি বলতে চাও?
–দিবা এসেছিল কেন?
–কি মুস্কিল উকিলের কাছে মক্কেল আসবে না?
–রতি রতির-মার কথা একটু ভাববে না?
–কি মুস্কিল সবার কথা ভাবতে গেলে আমাকে উকিলি-পেশাই ছেড়ে দিতে হয়। ধরো যদি ফ্লাট হয় রতিও কি সেই সুবিধে পাবে না?তোমায় একটা কথা বলি,নিজের কাজ মন দিয়ে করো।সব ব্যাপারে মাথা ঘামালে কোনো কাজই সুষ্ঠূভাবে হবেনা।
বেলাবৌদি আহত হল।বিজু আগে তার সঙ্গে এভাবে কথা বলত না।রতি বলছিল সব কিছু বদলায়,সম্পর্ক চিরকাল এক জায়গায় থেমে থাকেনা।ছেলেটার জন্য মায়া হয়।কেউ যদি রেগে তিরস্কার করে তাতেও মনে করে কিছু শেখা হল।মানুষ রেগে গেলে তার ভাষা কেমন বদলে যায়।বিজু ইদানীং কথা বলে অন্যদিকে তাকিয়ে,তাতেই বোঝা যায় ওর মধ্যে চাতুরি আছে।উকিল হলে কি মানবধর্ম ত্যাগ করতে হবে?ন্যায়ের জন্য লড়াই করা উকিলের কাজ কিন্তু বিজু যা করছে তাতো অন্যায়কে মদত দেওয়া।কে যেন বলছিল আল্পনার কথায় দিবাকর ওঠে বসে।বেলার মনে হয় নিজেকে বাচানোর জন্য বউয়ের উপর দোষ চাপানো পুরুষ শাসিত সমাজের কৌশল।

আরও পড়ুন:-  জীবনের অপর পৃষ্ঠা (পর্ব-৩৩)

চলবে —————————

Leave a Reply