জীবনের অপর পৃষ্ঠা (পর্ব-৪৭)

লেখক – কামদেব

[সাতচল্লিশ] —————————

           বাংলোর অফিসে বসেই কাজ করছেন এস পি সাহেব।ফোন আসছে ফোন ধরছেন।রতি লাঞ্চ সেরে চলে গেছে,বলে গেছে আসবে।তবু না-আসা অবধি ভরসা নেই।খেয়ালি ছেলে মুডের উপর চলে। ওর খুশীদিকে অন্য কেউ কিছু করুক ও চায়না, সোসাইটিতে যাবো বলতে যেভাবে পা জড়িয়ে ধরেছিল ভেবে রক্তিম হয় খুশবন্ত। অতীতের স্মৃতি চারণায় মন ডুবে যায়। প্রথম ওকে দেখেছিল যোগা ক্লাসে।চোখ বুজে ধ্যান করছিল দেখে মনে হচ্ছিল সন্ত,সেদিনই ওকে ভাল লেগে যায়। পরে আলাপ হয়েছে।একদিন রাত্রিবালা ট্যাক্সির জন্য ছোটাছুটি করছে,যখন বলল,দাড়া আমি গাড়ি নিয়ে আসছি।অবাক হয়ে বলেছিল তুমি গাড়ী চালাবে?সেই রাত্রে ওর বৌদিকে শিশুমঙ্গলে পৌছে দিয়েছিল খুশবন্ত।খুশবন্ত লক্ষ্য করেছে তার ডানপিটে ভাব রতির খুব পছন্দ।উদার মন সরল তবে পর নির্ভরশীল। ওকে একা ছাড়া কি ঠিক হল?পুলিশ পারেনা হেন কাজ নেই।
বাপুর কলকাতায় পোস্টিং হলে প্রথমে ভবানীপুর তারপর ঐ পাড়ায় চলে আসে।তখন খুশবন্ত গোখেলে বি.এ পড়ছে।তার বরাবর স্বপ্ন ছিল আই পি এস হবে।পাড়ায় বাঙালী ছেলেদের সঙ্গে মিশে গেল।দুর্গাপুজো পিকনিক এমন কি সামাজিক অনুষ্ঠানেও তাকে নেমন্তন্ন করা হত।বাঙালী মেয়েদের মত সে অতটা মুখচোরা ছিলনা।একবার  পিকনিক করতে গিয়ে ,কয়েকজন ব্যাডমিণ্টন খেলছিল।ছেলেরা কোথা থেকে ঘুরে এসে খুব হাসাহাসি করছিল,একজন মজা করে বলেছিল,রতির সম্পদ দেখেছিস? রতির লজ্জায় চোখ মুখ লাল, সবাই মুখ চাওয়া চাওয়ি করছিল কিন্তু খুশবন্ত অনুমান করেছিল কি বলতে চাইছে ওরা।আজ স্বচক্ষে দেখল সেই সম্পদ,সত্যি বেশ বড় রতির ঐটা।ফোন বাজতে কানে লাগিয়ে বলল,এখন রাউণ্ডে বের হবো।এসপি খুশবন্ত সিংকাউর বেরিয়ে গেলেন।
উধমসিং পিছনে উঠে বসল।এর আগে আরো অনেকের সঙ্গে কাজ করেছে কিন্তু এই এসপি ডেয়ার ডেবল আছে।রেইড উচ্ছেদ খোদ স্পটে  দাঁড়িয়ে থাকেন।কই আউরত এত সাহসী হয় উধমসিং দেখেনি আগে।মগর সাচ্চা লোককে কেউ পরসন্দ করেনা।
রতির মোবাইলে ফোন আসে,অন করে কানে লাগাতে মেয়েলী গলা শুনে কেটে দেয়।এইভাবে  ভেসে যাচ্ছিল ছেলেটা।এতকাল পরে এভাবে দেখা হবে কোনোদিন ভাবে নি।আমি থাকলে ওর এমন হতো না।কথাটা মিথ্যে বলে নি।আণ্টি নেই ও সরদার পাড়া না কোথায় থাকে বলল,পুলিশের পক্ষে এসব বের করা কোনো ব্যাপার নয় ।
খুশিদিকে সবই বলেছে আর কি জানতে চায়? আম্মাজী অত্যন্ত প্রভাবশালী তাই ভয় হচ্ছে খুশিদির সাংঘাতিক কোনো ক্ষতি করে না দেয়।তার কোনো কথা শুনতেই চায় না। রত্নাকরকে দেখে মিস্ত্রীরা অবাক হয়।রত্নাকর বুঝতে পারে রাতে ফেরেনি বলে ওদের চোখে কৌতুহল।কিন্তু কেউ কিছু জিজ্ঞেস করে না।
–কাল রাতে বিয়ে বাড়ীতে আটকা পড়েছিলাম।উপযাচক হয়ে বলল রত্নাকর।
–আসেননি ভাল করেছেন।একজন কাজ থামিয়ে বলল।
রত্নাকর অবাক হয়।আরেকজন বলল,দু-দুবার পুলিশ এসেছিল।রাতে এসেছিল আবার সকালেও।
বুকের মধ্যে ধক করে উঠল।বুঝতে না দিয়ে জিজ্ঞেস করে,কি বলছিল পুলিশ?
— কি একটা লোকের খোজ করছিল।
–ভুল করেছে মনে হয়।রত্নাকর দোতলায় উঠে গেল।
ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে ঘাম মুছল।খুশীদি কি এইজন্য পীড়াপিড়ী করছিল?কি করবে এখন?বিছানা নেওয়ার দরকার নেই।কিন্তু বাক্স নিয়ে ওদের সামনে দিয়ে বেরোতে গেলে সন্দেহ করবে।এর পিছনে আম্মাজীর হাত নেই তো?তাকে ছেলের মত মনে করে মা হয়ে ছেলের কেন ক্ষতি করতে চাইবে?বারবার জানলা দিয়ে উকি দেয়,জানলায় দাঁড়িয়ে রাস্তা দেখা যায়।পুলিশ কেন তার খোজ করছে তার অপরাধ কি?অসহায় বোধ করে।হঠাৎ নজরে পড়ল,মিস্ত্রীরা রাস্তা দিয়ে গল্প করতে করতে চলেছে।কিছুটা গিয়ে রায়বাহাদুর রোডের দিকে বাক নিল।মনে হয় টিফিন করতে যাচ্ছে।আর দেরী করা ঠিক হবেনা,এইবার বেরিয়ে পড়া যাক।বাক্স নিয়ে নীচে নামতে দেখল একটা অটো রায়বাহাদুর রোড থেকে বের হচ্ছে।পিছনে লোক ভর্তি ড্রাইভারের পাশে বাক্স কোলে নিয়ে বসল।অটো স্টার্ট করতে মনে হল ঘাম দিয়ে জ্বর ছাড়ল।খুশীদির ওখানে আর কদিন তারপর কোথায় যাবে?খুশীদি অতবড় চাকরি করে ইচ্ছে করলে তার একটা ব্যবস্থা করতে পারে না? বেকার ছেলের চাকরি দরকার মুখ ফুটে বলতে হবে কেন? চাকরি থাকলে আজ কি তাকে ঐসব করতে হতো?পুজোর আগে তাদের ফ্লাট হয়ে যাবে শুনেছে কিন্তু এদিকের ঝামেলা না মিটলে ফ্লাটেই বা যাবে কি করে?আম্মাজীকে ধরা ছাড়া কোনো উপায় দেখছে না।কিন্তু আম্মাজী যদি ঐসব করতে বলে?খুশীদিকে কথা দিয়েছে আর ঐসব করবে না।অটোর ইঞ্জিনের শব্দ আরো জোরে হোক যাতে চিন্তাগুলো ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়।
অটো থেকে নেমে বাস রাস্তার দিকে হাটতে থাকে।বাস স্টপে দেখল কৃষ্ণকলি দাড়িয়ে, তাকে দেখে মৃদু হাসলেন।অগত্যা রত্নাকরকেও হাসতে হল।অধ্যাপিকা কাছে ঘেষে এসে জিজ্ঞেস করেন,সোসাইটিতে যাচ্ছেন?
আবার চিন্তাটা ধরিয়ে দিল।রত্নাকর সম্মতিসুচক হাসল।ইতিমধ্যে বাস এসে পড়তে কৃষ্ণকলি  চট করে বাসে উঠে পিছন ফিরে জিজ্ঞেস করল,উঠবেন না?
রত্নাকর বলল,পরে যাবো।
এতবড় পৃথিবীতে তার জন্য কি একটু জায়গা হবেনা?নিজেকে ভীষণ একাকী মনে হয়।বাস আসতে উঠতে যাবে কণ্ডাকটর গতিরোধ করে,বাক্স যাবেনা।
–ভাই ভাড়া দেবো।কণ্ডাকটরের মায়া হয়,পথ ছেড়ে দিল।
বাক্সটা বসার জায়গার নীচে ঢুকিয়ে দিয়ে জানলা ঘেষে বসল।কেউ জানেনা তার বাক্সে কত টাকা।যখন টাকা ছিল না,ভাবনা ছিলনা।যার তার সঙ্গে কথা বলতে ভালবাসতো।এখন টাকা হয়েছে কিন্তু তাকে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে। খান্না সিনেমার কাছে বাস বাক নেয়।মনে পড়ল ছবিদির কথা।এদিক ওদিক খুজল চোখ,কোথাও নজরে পড়লনা।এখন হয়তো সাজগোজ করছে ঘরে,সন্ধ্যেবেলা বের হবে।বিধানগরে ঢুকে ট্র্যাফিক সিগন্যালে দাঁড়িয়ে গেল বাস।তার সামনেই এক মহিলার কাট আউট,প্যাণ্টি ব্রা পরা কোন বিজ্ঞাপনের ছবি সম্ভবত।মহিলা তার দিকে তাকিয়ে হাসছে।ছবিটা এমনভাবে আকা যে দেখবে তারই মনে হবে তার দিকে তাকিয়ে, দেখতে দেখতে খুশীদির কথা মনে পড়ল।খুশীদির ফিগারটাও এরকম,খুব ভয় পেয়ে গেছিল।বাস নড়ে উঠল, ধীর গতিতে এগোতে থাকে।মহিলার দৃষ্টি তার দিকে।একসময় মিলিয়ে যায় দূরে।
কনডাকটর হাক পাড়ে এসপি বাংলো।রত্নাকর বাক্স নিয়ে নেমে স্বস্তি বোধ করে।রাস্তা পেরিয়ে গেটের কাছে যেতে একজন সিপাহী তেড়ে এল,কাঁহা যায়গা?
–এসপি—।
–আভি নেহি, রাউণ্ডমে হ্যায়।
রত্নাকর বুদ্ধি করে বলল,জানকি মাসী আমাকে চেনে।
–বোলা না সাম মে আইয়ে।
গোলমাল শুনে জানকিমাসী বেরিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে। রত্নাকরের মাথায় একটা ব্যাপার ঝিলিক দিয়ে গেল।যখনই কোনো বিপদে পড়ে তাকে উদ্ধার করে কোনো না কোনো মহিলা।তাকে যে ঘরটায় বসতে বলা হল,সেটি স্টোর রুম।দুপুরে যাবার সময় দেখে গেছে ফাইল-পত্তরে ঠাষা এদিক-ওদিক ছড়িয়ে থাকা ভাঙ্গাচোরা ঝুলকালিতে জড়ানো আসবাব।সেসব একদিকে সরিয়ে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে।দেওয়াল ঘেষে একটা ক্যাম্প খাট।ঘরে দু-একটা পোকা-মাকড় থাকলেও এখানে পুলিশ ঢুকে তাকে বিব্রত করতে পারবেনা ভেবে আশ্বস্থ বোধ করে রত্নাকর। জানকি মাসী চা নিয়ে ঢুকল।
সামনে জীপে কয়েকজন সিপাই সহ ওসি সিকদারবাবু পিছনে এসপি সাহেবের জীপ এসে দাড়ালো সোসাইটির নীচে।খুশবন্ত সিংকাউর জীপ থেকে নেমে চারপাশ ঘুরে দেখলেন।সিকাদারবাবু জিজ্ঞেস করল,স্যার ভিতরে যাবেন?
খুশবন্ত সিংকাউর সানগ্লাস খুলে হাসলেন।
–আম্মাজী ধর্মপ্রাণ মহিলা দেখলেও পুণ্যি স্যার।ক্যালানের মত হেসে বলল সিকদারবাবু।
–আপনে বহুৎ পুন্য কামায়া?
–হে-হে-হে  আসি মাঝে সাঝে।বিব্রত স্বরে বলল সিকদারবাবু।
খুশবন্ত জীপে উঠে স্টার্ট করতে সিকদারের জীপ অনুসরন করে।উধম সিং পিছনে বসে সিকদারকে ইঙ্গিত করে বলল,বাঙালী লোক বহুৎ হারামী।
–হারামী সব মুলুকেই পাবেন।খুশবন্ত বললেন।
–জী সাব।
রতি ফিরেছে কিনা কে জানে।যোগ ক্লাসে ওকে দেখে ভাল লেগেছিল।তারপর ঘণিষ্ঠতা হয়।লাজুক মুখচোরা স্বভাব।ওকে দিয়ে বলিয়ে না নিলে নিজে মুখ ফুটে কিছু বলবে না।সেই ছেলে কীভাবে–কিছুতেই অঙ্ক মেলাতে পারে না।
জানকীর সঙ্গে রতির বেশ ভাব জমে গেছে।বহুকাল জানকি এমন মনোযোগী শ্রোতা পায়নি।তার জীবনের কথা কেউ এমন গুরুত্ব দিয়ে শুনবে ভাবেনি।জানকি তার মনের মধ্যে জমে থাকা অতীতকে তুলে ধরে তৃপ্তি পায়।
ভরত মহাপাত্র উড়িষ্যা হতে কলকাতায় এসেছে।প্লাম্বারের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করত।ভরত এবং জানকির একমাত্র মেয়ে সুভদ্রার বিয়ের পর উড়িষ্যায় থাকে।ভরতের মৃত্যুর পর অসহায় জানকি জনৈকের সহায়তায় এসপি বাংলোয় রান্নার কাজ পেলেও মনে শান্তি ছিলনা।এসপি ভদ্রলোক নেশা করতেন,রাতে দরজা ধাক্কাতেন।
–উনি বিয়ে করেননি?রতি জিজ্ঞেস করে।
–বিয়ে করেছে ছেলেমেয়ে আছে।সবাই দেশে থাকে।
–দেশ কোথায়?
–মুঙ্গের জেলার লোক, বিহারী।
জানকি আবার শুরু করে। অন্যত্র যাবার জন্য একেতাকে বলা শুরু করেছে।এমন সময় এসপি বদলি হয়ে গেলেন তার জায়গায় এলেন খুশবন্ত শিং কাউর।জানকি সিদ্ধান্ত বদলে এখানেই থেকে যাওয়া স্থির করে।এসপি তাকে মৌসী বলে সম্বোধন করেন,বয়স কম বাজে নেশা নেই।খুব মেজাজি এই যা দোষ। গল্প করতে করতে রত্নাকর জানকি মাসীর সম্পর্কে অনেক কথা জানল।
–এই ম্যাডম খুব ভাল?
–মেয়ে মানুষ একা একা থাকে।খুব খারাপ লাগে।
বাইরে জীপের শব্দ পেয়ে জানকি উঠে পড়ে বলল,মনে হয় ম্যাডম আসিছে।আপনে এইসব কথা ম্যাডমরে বলবেননা।জানকি চলে গেল।জানকি খুশীদির নিঃসঙ্গতার প্রতি ইঙ্গিত করে গেল।ঠিকই খুশীদি তো বিয়ে করতে পারে।
পুলিশি পোশাকে খুশীদি ঢূকে বলল,এসেছিস?কোথায় তোর জিনিসপ্ত্র?
রত্নাকর বাক্স দেখিয়ে দিল।খুশীদির বুক দেখে কে বলবে মেয়ে।আড়চোখে চেয়ে চেয়ে দেখে।খুশবন্ত বলল,খোল দেখি  কি সম্পদ আছে?
রত্নাকর বাক্স খুলতে খুশবন্ত হাতড়ে দেখতে থাকে।কয়েক প্রস্থ জামা প্যাণ্ট লুঙ্গি কয়েকটা খাতা আর কয়েকগোছা টাকা।হঠাৎ বালা জোড়া নজরে পড়তে জিজ্ঞেস করে,এগুলো কোথায় পেলি?
রত্নাকর লাজুক মুখে নীচের দিকে তাকিয়ে থাকে।খুদশীদি টাকাগুলো হাতে নিয়ে বলল, এগুলো নোংরা টাকা বুঝতে পারছি কিন্তু এদুটো কোথায় পেলি?
–আমার মা দিয়েছে।
–তাহলে এগুলো বেচলেই টাকা পেতিস ঐসব করতে গেলি কেন?
রত্নাকর চুপ করে থাকে।খুশবন্ত বলল,অপরাধের অজুহাত?
–না মোটেই না।ওগুলো মা আমাকে দেয়নি।বলেছে বউকে দিবি।
খুশবন্তের হাসি পেলেও হাসেনা।বালা জোড়া ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখতে দেখতে বলল,বিছানা কোথায়?
–এই কত কষ্ট করে এনেছি।দুবার পুলিশ খুজতে গেছিল জানো?
খুশবন্তের এই আশঙ্কা ছিলনা তা নয়।রতিকে বলল,তুই বড় ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছিস।এবার বুঝতে পারছিস কেন তোকে এখানে আসতে বলেছিলাম?কই দেখি তোর উপন্যাস?
রত্নাকর একটা খাতা এগিয়ে দিল।খুশবন্ত পড়তে চেষ্টা করে,অবিয়–।
রত্নাকর বলল,অব্যক্ত প্রেম।মানে যে কথা বলা হয়নি।
–যে কথা বলা হয়নি।এটা শুনতে আরো ভাল লাগছে।ঠিক আছে একটূ বিশ্রাম করে আমার ঘরে আয়।ভাবছি আজ আর বেরবো না।
খুশবন্ত খাতা আর বালাজোড়া নিয়ে চলে গেল। রত্নাকর বুঝেও কিছু বলতে পারেনা।হয়তো ভুল করে নিয়ে গেছে খেয়াল হলে দিয়ে দেবে।অন্যের বালা খুশীদি নিতে যাবে কেন?
খুশবন্ত ঘরে এসে ভাবে বিয়ের পর বউকে বালা দেবে।  উফস বিয়ের কথা ভাবলে এখনো শিউরে ওঠে।দুনিয়ায় কত রকমের ফাঁদ বিছানো।

আরও পড়ুন:-  জীবনের অপর পৃষ্ঠা (পর্ব-১৮)

চলবে —————————

Leave a Reply